ফেরেশতা

From Sunnipedia
Revision as of 15:08, 19 August 2014 by Khasmujaddedia1 (Talk | contribs)

Jump to: navigation, search

আরবিতে 'মালাইকা' । ইহার একবচন 'মালাক' 'হামযা' ব্যতীত এবং এইরূপই কুরআন মজীদে সর্বত্র লিখিত হইয়াছে । মালাক শব্দের আভিধানিক অর্থ দূত বা সংবাদবাহক । এইজন্যই কোরআনে ফেরেশতার জন্য রুসুল শব্দো ব্যবহৃত হয়েছে । কোরআন হাদীস ও তাফসীর গ্রন্থসমূহে ফেরেশতা সম্পর্কে যেইসব গুরুত্বপূর্ন বিষয় বর্নিত রহিয়াছে তাহা নিম্নরুপঃ

১) উহারা অদৃশ্য দেহধারী এমন এক মাখলুক যাহাদিগকে নূর দ্বারা সৃষ্টি করা হইয়াছে
২) তাহাদের পালক থাকে
৩) তাহারা যেকোন স্থুল আবরন ভেদ করিতে সক্ষম
৪) তাহাদের দেহ সূক্ষ্ণ ও বায়বীয় ধরনের
৫) বিভিন্ন প্রকার দেহ ধারন করিতে সমর্থ । তাহারা আসমানে অবস্থান করেন ।
৬) আল্লাহ্‌ তা'আলা তাঁদের মাধ্যমে অনেক কার্য সমাধা করাইয়া থাকেন ।
৭) তাহাদের গতির পরিমন্ডল আসমান হইতে জমিন পর্যন্ত এবং অতঃপর আসমান হইতে আরো উর্ধে আরেক সীমানা পর্যন্ত ব্যাপৃত
৮) ফেরেশতাগণ সরাসরি আল্লাহ্‌ তা'আলার নিকট হইতে নির্দেশ লাভ করেন এবং তাহারই ফয়সালা ও মর্জিমাফিক কার্‍্য ও উপাদানের মধ্যে সমন্বয় সাধন করেন ।
৯) তাহারা আল্লাহ্‌ ও সৃষ্টির মধ্যে সংবাদ বহনের দায়িতব সম্পাদন করেন । আল্লাহ্‌ প্রদত্ত বিধানের মাঝে তাহারা নিজেদের পক্ষ হইতে কোন রদবদল করিতে পারে না
১০) সর্বক্ষন তাহারা আল্লাহ্‌ তা'আলার হাম্‌দ, মহিমা ও তার রাসূল মুহাম্মাদ (সঃ) এর উপর দরুদ সালাম পাঠে রত থাকেন । [1]

ফেরেশতা জিবরাঈল (আঃ) এর নাম কুরআনে তিনবার অলিখিত হইয়াছে । তাহার নাম সম্পর্কে মুসলিম শরীফে [2] উল্লেখ আছে । জীবরাঈল (আঃ) কে অনুক্ত 'রুহুল আমীন' (বিশ্বস্ত আত্মা) নামে উল্লেখ রয়েছে [3]। তিনি মুহাম্মাদ(সঃ) এর ক্বালবে সুস্পষ্ট আরবী ভাষায় প্রত্যাদেশ (ওহি) বহন করিয়া আনিতেন । কোরআনের আরও কিছু জায়গায় তিনি অনুক্ত রহিয়াছেন [4][5]

তিনি সরাসরি মুহাম্মাদ (সঃ) এর নিকট ওহি বহন করিয়া আনিতেন

অতঃপর আমি তার কাছে আমার রূহ প্রেরণ করলাম

— সূরা ১৯, আয়াত ১৭

[6]

তথ্যসূত্র

  1. ইসলামী বিশ্বকোষ (ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ)
  2. মুসলিম শরীফ, ঈমান অধ্যায়, হাদীস নং ২৮০
  3. সূরা ২৬, আয়াত ১৯৩ - ১৯৫
  4. সূরা ৫৩, আয়াত ৫-১৮
  5. সূরা ৮১, আয়াত ১৯ -২৫
  6. সংক্ষিপ্ত ইসলামী বিশ্বকোষ (ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ)