হযরত ইমাম মুসলিম (রাঃ)এর কূফা গমন

From Sunnipedia
Revision as of 06:39, 30 August 2014 by Khasmujaddedia1 (Talk | contribs) (Created page with "{{কারবালার ইতিহাস 1|কারবালার ইতিহাস}} কূফাবাসীদের পক্ষ থেকে এ ধরনের...")

(diff) ← Older revision | Latest revision (diff) | Newer revision → (diff)
Jump to: navigation, search
কারবালার ইতিহাস





  • হযরত ইমাম মুসলিম (রাঃ)এর কূফা গমন


























কূফাবাসীদের পক্ষ থেকে এ ধরনের চিঠি লিখার পরিপ্রেক্ষিতে শরীয়তের বিধান অনুযায়ী হযরত ইমাম হুসাইন(রাঃ) চিন্তা করলেন যে, সেখানে তিনি যাবেন কি না। তিনি(রাঃ) অনেকের সাথে এ বিষয়ে পরামর্শ করলেন এবং শেষ পর্যন্ত এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন যে, প্রথমে একজন নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিকে পাঠাবেন, যিনি সেখানে গিয়ে স্বচক্ষে অবস্থা যাচাই করে দেখবেন যে, ওরা বাস্তবিকই তাঁকে(রাঃ) চায় কি না? তার(রাঃ) প্রতি সত্যিই আন্তরিক মুহব্বত ও বিশ্বাস আছে কিনা ? সঠিক বিবরণ পাওয়ার পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন, তিনি যাবেন কি যাবেন না।

অতঃপর তিনি তাঁর চাচাতো ভাই হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ) এ কাজের জন্য মনোনীত করলেন এবং ফরমালেন, ‘প্রিয় মুসলিম! কূফা থেকে যেভাবে চিঠি আসছে তা যাচাই করে দেখার জন্য তোমাকে আমার প্রতিনিধি করে সেখানে পাঠানোর মনস্থ করেছি। তুমি সেখানে গিয়ে স্বচক্ষে অবস্থা উপলব্ধি এবং যাচাই করে যদি অবস্থা বাস্তবিকই সন্তোষজনক মনে কর, তাহলে আমার কাছে চিঠি লিখবে। চিঠি পাওয়ার পর আমি রওয়ানা হবো, অন্যথায় তুমি সেখান থেকে ফিরে আসবে। তাঁর চাচাতো ভাই হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ) যাবার জন্য তৈরি হয়ে গেলেন। হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) কূফাবাসীদের কাছে একটি চিঠি লিখলেন-

ওহে কূফাবাসী! পরপর তোমাদের অনেক চিঠি আমার কাছে পৌঁছেছে। তাই আমি আমার চাচাতো ভাই হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ)কে আমার প্রতিনিধি করে তোমাদের কাছে পাঠালাম। তোমরা সবাই তাঁর হাতে বাইয়াত গ্রহণ করো এবং তাঁর খিদমত করো। সে তোমাদের মনোভাব যাচাই করে আমার কাছে চিঠি লিখবে, যদি তোমাদের মনোভাব সন্তোষজনক হয়, তাঁর চিঠি আসার পর পরই আমিও তোমাদের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে যাব।

এভাবে চিঠি লিখে সীল মোহর লাগিয়ে হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ) দিলেন । হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ)-এর দুই ছেলে হযরত মুহম্মদ ও হযরত ইব্রাহীম তাঁর সাথে যেতে গোঁ ধরলেন। তাঁরা বলতে লাগলেন, আব্বাজান! আমাদেরকে ফেলে যাবেন না, আমাদেরকেও সাথে নিয়ে যান। হযরত মুসলিম বিন আক্বীল (রাঃ) ছেলেদের অন্তরে আঘাত দিতে চাইলেন না। তাই তাঁর ছেলেদ্বয়কেও সাথে নিলেন। অতঃপর তিনি মক্কা শরীফ থেকে মদীনা শরীফ গেলেন এবং আত্মীয় স্বজনের সাথে দেখা করার পর কূফার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলেন।[1]

তথ্যসূত্র

  1. কারবালা প্রান্তরে(লেখকঃ খতিবে পাকিস্তান হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ শফী উকাড়বী(রহঃ))