মহানবী (সাঃ) নিজের মিলাদ নিজেই পাঠ করেছেন

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search

একদিন নবী করীম (দাঃ) মিম্বারে দড়িয়ে সমবেত সাহাবীগনকে লক্ষ্য করে বললেন : তোমরা বল - আমি কে ? সাহাবায়ে কেরাম বললেন আপনি আল্লাহর রাসুল । হুজুর ( দঃ ) বললেন : আমি আব্দুল্লাহর পুত্র মুহাম্মদ , আব্দুল মোত্তালিবের নাতী, হাশেমের প্রপৌত্র এবং মানাফের পুত্রের প্রপৌত্র ।

এই হাদিসের গুরুত্ব মতেই ইমামগন চার কুরছিকে ফরজ বলেছেন ।

হুজুরে আকরাম (দঃ) আরও এরশাদ করেন

আল্লাহ তায়ালার পক্ষ হতে আমার একটি বিশেষ মর্যাদা এই যে , আমি খতনা অবস্থায় ভুমিষ্ট হয়েছি এবং আমার লজ্জা স্থান কেউ দেখেনি ।

— তাবরানী, জুরকানী

অন্যান্য রেওয়ায়াতে পা পবিত্র , নাভি কর্টকৃত , সুরমা পরিহিত , বেহেস্তি লেবাস পরিহিত অবস্থা ভুমিষ্ট হওয়ার বর্ননা এসেছে [1] । এছাড়াও জঙ্গে-হোনায়নেরর যুদ্ধে যখন হাওয়াজিনের তীর নিক্ষেপে মুসলিম সৈন্যগন ছত্রভঙ্গ হয়ে পরেছিলেন , তখনও নবী করীম (দঃ) একা যুদ্ধ ময়দানে দাড়িয়ে বলেছিলেন

আনা নাবী্যয়ু লা কাযেব + আনা ইবনে আব্দুল মুত্তালিব

অর্থাৎ আমি আল্লাহর নবী , আমি মিথ্যাবাদী নই । আমি আব্দুল মোত্তালিবের বংশধর ।

উপরোক্ত প্রথম ঘটনা টি দাঁড়িয়ে বলা এবং বর্ননা করার নামই মিলাদ ও কেয়াম । সুতরাং মিলাদ ও কেয়াম স্বয়ং রাসুল পাকের সুন্নত । দ্বিতিয় বর্ননায় " ওয়ালাদাত " শব্দটি এসেছে । এর অর্থ হলো আমি জন্ম গ্রহন করেছি - ভুমিষ্ট হয়েছি -আবির্ভুত হয়েছি । সব বর্ননাই নবী করীম (দঃ) কেয়াম আবস্থা ছিলেন । তিনি নিজেই কেয়াম করেছেন সুতরাং বেলাদতের বর্নানা কালে কেয়াম করা নবীজীর ই সুন্নত ।

তথ্যসূত্র

  1. মাদারেজুন্নবুয়াত
  • মিলাদ ও কিয়ামের বিধান (লেখকঃ অধ্যক্ষ এম এ জলিল (রহঃ))