শাবান

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search

শা'বান এর অর্থ হলো বিভিন্ন শ্রেণীতে বিভক্ত হওয়া। যেহেতু হারাম মাসে যুদ্ধ-বিগ্রহ থেকে বিরত থাকার পর আরবরা শা’বান মাসে আবার তাদের আক্রমণের জন্য বিভিন্ন শ্রেণীতে বিভক্ত হতো, তাই একে শা’বান নামে নামকরণ করা হয়েছে । শাবান এর অপর অর্থ শাখা-প্রশাখা বিস্তৃত হওয়া। যেহেতু এ মাসে রোজাদারদের সওয়াব গাছপালার শাখা-প্রশাখার মতো বাড়তে থাকে­ তাই মাসটিকে শাবান হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

শা’বান নাম করনের তাৎপর্য সম্পর্কে মহানবী (সঃ) ইরশাদ করেনঃ

হযরত আনাস বিন মালেক (রাঃ) হতে বর্নিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ্‌ (সঃ) এরশাদ করেন, শা’বানকে এজন্য শা’বান নাম দেয়া হয়েছে; যেহেতু এ মাসে রমযানের অবারিত কল্যাণ ও বরকত হাসিলের বিভিন্নমুখী দ্বার খুলে দেয়া হয়, আর রমযানকে রমযান নাম রাখার কারন হল এ মাসে গুনাহ্‌সমূহ জ্বালিয়ে ভস্মীভূত করা হয় ।

— গুনিয়াতুত্‌ তালিবিন পৃ ৪৪৫

আল্লামা মাগরিবী (রঃ) বলেন-

আমার দৃষ্টিতে মশহুর মাস হল রমযান মাস । কেননা এ মাসে কুরআন নাযিল হয়েছে । এরপর রবিউল আউয়াল মাস কেননা এ মাসে আল্লাহ্‌র হাবীব দুনিয়ায় তাশরীফ এনেছেন, এরপর রজব মাস, কেননা হারাম মাস সমূহের মধ্যে একক এবং আল্লাহ্‌র মাস এরপর শা’বান মাস যে মাসটি আল্লাহ্‌র হাবীবকে দেয়া হয়েছে যে এমাসে অর্থাৎ রজব ও রমযানের মত মহান দুই মাসের মাঝে শা’বান মাসে বান্দার আমল ও জীবন মৃত্যু বণ্টন করা হয় ।

— তাফসীরে রুহুল বয়ান, খন্ড ৮, পৃ ৪০১

শা’বান শব্দে পাঁচটি অক্ষর আছেঃ শীন, আঈন, বা, আলিফ ও নুন । এর তাৎপর্য হল-
শীন - দ্বারা বুঝানো হয়েছে শরফ বা মর্যাদা । অর্থাৎ এ মাস অতীব মর্যাদাপূর্ন ।
আঈন - দ্বারা উলুব বা উন্নত মর্যাদা, উন্নতির বাহন অর্থাৎ এ মাসে ইবাদতের মাধ্যমে মানুষ উন্নতির চরম শিখরে আরোহণ করতে সক্ষম হয় ।
বা – দ্বারা পূর্নতা ও নেক আমল বুঝানো হয়েছে । অর্থাৎ এ মাস পূর্ন নেক অর্জনের সুবর্ন সুযোগ রয়েছে ।
আলিফ - দ্বারা উলফত বা আল্লাহর সাথে বান্দার এবং বান্দার সাথে বান্দার প্রবনতা,ভালবাসা সৃষ্টির মাস ।
নুন - দ্বারা নুর অর্থাৎ এ মাসে আল্লাহ্‌ প্রদত্ত কল্যাণ বরকত, প্রিয় রাসূলের প্রতি দরুদ ও সালামের মাধ্যমে মানুষ অন্তরে নূর ধারণ করতে সক্ষম হয় । (গুনিয়াতুত তালেবীন পৃ ৩৬৫)