হিজরত থেকে বদরের যুদ্ধের পূর্ব পর্যন্ত

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
হিজরত 

অবশেষে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর তরফ থেকে হিজরতের নির্দেশ পেয়ে সাহাবাদের গোপনে দেশত্যাগের পরামর্শ দেন; যাতে কুরায়েশরা টের না পায়। পরিশেষে যখন তারা টের পেল, তখন তারা রাগে ও ক্ষোভে ফেটে পড়লো। তারা হিজরত ঠেকানোর জন্য বিভিন্ন ঘাটিতে বসে ওৎঁ পেতে পাহারা দেওয়া শুরু করলো এবং তাদের হাতে যারা ধরা পড়তো, তারা তাদের ওপর কঠোর নির্যাতন চালাতো। এমনকি তারা স্বামীকে স্ত্রী থেকে এবং মাকে সন্তান থেকে বিচ্ছিন্ন করতো।

রাসূলুল্লাহ (স.)-কে হত্যার ষড়যন্ত্র 

সবশেষে নবূওতের চতুর্দশ সনের ১লা মুহাররমে কুরায়েশ নেতারা বিভিন্ন আলোচনার পর, নজদবাসী বৃদ্ধ শয়তানের পরামর্শক্রমে মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং এ কাজের জন্য প্রত্যেক গোত্র থেকে একজন করে প্রতিনিধি নির্বাচন করে। পবিত্র কুরআনে এ ষড়যন্ত্রের কথা উল্লেখ আছে। আল্লাহর বাণী :

وَإِذْ يَمْكُرُ بِكَ الَّذِينَ كَفَرُوا لِيُثْبِتُوكَ أَوْ يَقْتُلُوكَ أَوْ يُخْرِجُوكَ ۚ وَيَمْكُرُونَ وَيَمْكُرُ اللَّهُ ۖ وَاللَّهُ خَيْرُ الْمَاكِرِينَ

অর্থ : “আর স্মরণ করুন, যখন কাফিররা আপনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছিল আপনাকে বন্দী করার জন্য, অথবা আপনাকে হত্যা করার জন্য, অথবা আপনাকে দেশান্তরিত করার জন্য, আর তারা তো তাদের ষড়যন্ত্র করছিল এবং আল্লাহ্ ও তাঁর কৌশল করছিলেন। বস্তুত আল্লাহ্ হলেন শ্রেষ্ঠ কৌশলী।”

— সূরা আনফাল, আয়াত : ৩০।

হিজরতের আদেশ 

আল্লাহর নির্দেশে হযরত জিব্রাইল (আ.) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে এসে কাফিরদের ষড়যন্ত্রের কথা জানিয়ে দেন এবং মদীনায় হিজরত করে চলে যাওয়ার জন্য বলেন।

আমানতের মাল ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থা 

কুরায়শরা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে আল্লাহর প্রেরিত নবী হিসাবে স্বীকার না করলেও তাঁকে ‘আল-আমীন’ বা বিশ্বাসী বলে মনে করতো। তাই তারা তাদের মূল্যবান সম্পদ, অলঙ্কার, টাকা-পয়সা তাঁর কাছে আমানত বা গচ্ছিত রাখতো। হুজুর (স.) হযরত আলী (রা.)-কে তাঁর চাদর মুড়ি দিয়ে, তাঁর বিছানায় শুয়ে থাকতে বলেন এবং সকলের আমানতের মাল ফিরিয়ে দেয়ার পর মদীনায় হিজরত করে তাঁর সাথে মিলিত হওয়ার নির্দেশ দেন।

হিজরতের যাত্রা শুরু 

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আলী (রা.)-কে সব নির্দেশ দিয়ে ‘বিস্মিল্লাহ’ বলে ঘর থেকে বের হন। তিনি তাঁর হাতে এক মুঠো বালু নিয়ে শত্রুদের দিকে ছুঁড়ে মারেন। এ সময় তিনি সূরা ইয়াসীনের এ আয়াত তেলাওত করছিলেন :

وَجَعَلْنَا مِن بَيْنِ أَيْدِيهِمْ سَدًّا وَمِنْ خَلْفِهِمْ سَدًّا فَأَغْشَيْنَاهُمْ فَهُمْ لَا يُبْصِرُونَ

অর্থ “আর আমি তাদের সামনে ও পেছনে আড়াল সৃষ্টি করলাম। এভাবে তাদের আমি ঢেকে ফেললাম, ফলে তারা কিছুই দেখতে পায়নি।”

— আল্-কুরআন, সূরা ইয়াসীন আয়াত : ৯।

সওর গুহায় তিন দিন 

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দ্রুত হযরত আবু বকরের বাড়ীতে গিয়ে, তাকে সাথে নিয়ে বের হয়ে পড়েন এবং মক্কা হতে দক্ষিণ দিকে তিন মাইল দূরে সাওর পর্বতের গুহায় আত্মগোপন করেন। এখানে তাঁরা তিন দিন অবস্থান করেন।

মদীনার পথে 

তিন দিন অতিবাহিত হওয়ার পর রাসূল্লুাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আবু বকর (রা.)-কে সাথে নিয়ে মদীনা অভিমুখে যাত্রা করেন। তাদের রাহবর বা পথ-প্রদর্শক ছিল আবদুল্লাহ বিন উরায়কীত, যে অপরিচিত নতুন পথে তাঁদেরকে মদীনায় পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেছিল।

সুরাকা বিন মালিকের অনুসরণ 

‘মুহাম্মদ (স.) পালিয়েছে’- কুরায়শদের এ ঘোষণা বাণী বিদ্যুতের মত চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। তারা ঘোষণা দেয় : মুহাম্মদ (স.) ও আবু বকরকে জীবিত বা মৃত যে কোন অবস্থায় ধরে দিতে পারলে তাকে একশত উট পুরস্কার দেওয়া হবে।

লোহিত সাগরের উপকূল ধরে কাফেলা চলতে থাকে। যে পথে সব লোক মদীনা যায়, সে পথ তারা বর্জন করে। কিছুদূর যাওয়ার পর সূরাকা বিন মালিক তাঁদের ধরার কাছে কাছে যেতে চাইলে, আল্লাহর কুদরতে তার ঘোড়ার পা বালুর মধ্যে আটকে যায়। সুরাকা তার কাজের জন্য অনুতপ্ত হয়ে ক্ষমা চাইলে রাসূল (স.) তাকে ক্ষমা করে দেন।

স্বদলবলে বারিদার ইসলাম গ্রহণ 

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাফেলা যখন মদীনার নিকটবর্তী হয়, তখন একশত উট পুরস্কার পাওয়ার আশায় বারিদার নেতৃত্বে ৭০ জন বেদুইন ডাকাত তাঁদের আক্রমণ করার জন্য উদ্যত হয়। যারা কুরআন শুনে এবং রাসূল (স.)-এর নূরানী চেহারা দেখে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম কবুল করে এবং পড়ে নেয় : ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ।” রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাদের সাথে নিয়ে অপূর্ব মহিমায় মদীনায় প্রবেশ করেন।

মদীনায় রাসূল (স.)

রবিউল আওয়াল মাসের ৮ তারিখ। ৬২৪ খৃষ্টাব্দের ২৯ শে সেপ্টেম্বর, দুপুরের সময় রাসূলুল্লাহ (স.)-এর কাফেলা ‘কোবা’ নামক স্থানে পৌঁছে। সেখানে তিনি ১২ দিন অবস্থান করেন এবং সেখানে একটি মসজিদ নির্মাণ করেন। এটিই প্রথম মসজিদ।

প্রথম জুম‘আ 

কোবা থেকে রওয়ানা হয়ে রাসূলুল্লাহ (স.) যখন বনূ সালিম ইবন আওফ-এর মহল্লায় পৌঁছান, তখন তিনি ১০০ জন লোক নিয়ে সেখানে জুম্আর সালাত আদায় করেন। এটিই ইসলামের সর্বপ্রথম জুম‘আর নামায।

মদীনায় প্রবেশ 

মদীনায় প্রবেশের পর এক নতুন সমস্যা দেখা দেয়। সেখানে নানা গোত্র, নানা দল। সবাই রাসূলুল্লাহ (স.)-কে তার ঘরে পেতে আগ্রহী। এ সময় আল্লাহর নির্দেশে স্থান নির্ধারণের ভারটি তিনি তাঁর উটের উপর ছেড়ে দেন। বলেন :

উট যেখানে গিয়ে স্বেচ্ছায় থেমে যাবে, আমি সেখানে অবস্থান করবো।

অবশেষে উটটি শহরের দক্ষিণ দিকে নাজ্জার গোত্রের মহল্লায় এসে বসে পড়ে। যার কাছে ছিল আবূ আইয়ুবের বাড়ী। নবী করীম (স.) ও আবু বকর (রা.) সেখানে অবস্থানের সিদ্ধান্ত নেন।

আবু আইয়ুবের গৃহে অবস্থান 

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবূ আইয়ুব আনসারী (রা.)-এর গৃহে সাত মাস অবস্থান করেন। এ সময় আবু আইয়ুব (রা.) ও তাঁর স্ত্রী মন প্রাণখুলে তাদের মেহমানদারী ও খিদমত করেন।

মসজিদে নববী নির্মাণ 

মদীনায় আগমণের পর রাসূলুল্লাহ (স.)-এর সর্বপ্রথম চিন্তা হলো আল্লাহর ইবাদতের জন্য একটি মসজিদ নির্মাণ করা। তাঁর উট যেখানে বসে পড়েছিল, তিনি সেখানে মসজিদ নির্মাণের ইচ্ছা করেন। হযরত আবু বকর (রা.) স্থানটি খরিদ করে মসজিদ তৈরীর জন্য দান করে দেন। যথা সময়ে মসজিদে নববী নির্মাণের কাজ শেষ হয়ে যায়। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও আবু বকর (রা.) তাঁদের পরিবারদের মক্কা থেকে আনার ব্যবস্থা করেন। কুরায়েশ কাফিররা এ সময় বাধা দেয়নি।

সৌভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক স্থাপন 

রাসূলুল্লাহ (স.) বলেন

এক মুসলমান অন্য মুসলমানের ভাই।

কাজেই তোমরা নিজের পছন্দমত ভাই বেছে নাও। ফলে, আনসার সাহাবীরা মুহাজিরদের থেকে পছন্দমত ভাই বেছে নেয়। তাদের ধন-সম্পত্তি ধর্ম-ভাইদের ভাগ করে দেয়। এমনকি যার দুটি স্ত্রী ছিল, একটিকে তার ভাইয়ের জন্য খুশী মনে পরিত্যাগ করে, এভাবে আল্লাহর রহমতে সাময়িক সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।

হিজরী সন 

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হিজরতের সময় থেকে হিজরী সনের শুরু। হিজরী ১৭ সনে হযরত আবু মূসা (রা.) হযরত উমরের নিকট এ মর্মে একটি পত্র লেখেন :

ইয়া খালীফাতুল মুসলেমীন! আপনার যে সমস্ত চিঠি-পত্র আমাদের কাছে আসে, তাতে কোন তারিখ না থাকায় বিশেষ অসুবিধা হয়।

খলীফা উমার (রা.) এ পত্র পাওয়ার পর বিশিষ্ট সাহাবীদের নিয়ে একটা পরামর্শ সভার আয়োজন করেন। কেউ কেউ বলেন : “নবূওত প্রাপ্তির দিন থেকে তারিখ আরম্ভ করা হোক।” আবার কেউ কেউ বলেনঃ “হিজরত থেকে আরম্ভ করা হোক।” যেহেতু হিজরত হতেই হক ও বাতিলের মধ্যে পার্থক্য সূচীত হয়েছে, তাই হযরত উমর (রা.) হিজরত থেকে তারিখ গননা আরম্ভ করা উচিত বলে মনে করেন। উল্লেখ্য যে, ‘আকাবার শেষ বায়‘আতের পর হতেই হিজরতের সংকল্প করা হয়, আর এরপর যে চাঁদ উদিত হয়, তা ছিল মুহারমের চাঁদ। আর যিল্হজ্জ মাসে এ মৌসুমের হজ্জ শেষ হয়ে আবার নতুন বছর শুরু হয়।

তাই সর্বসম্মতিক্রমে এরূপ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, ৮ই রবিউল আওয়াল থেকে পিছিয়ে ১লা মুহাররম থেকে সন-তারিখ গণনা শুরু করা হোক। এদিন থেকেই হিজরী সনের তারিখ সরকারীভাবে গৃহীত হয়। চন্দ্র বছরের হিসাবে হিজরী সন গণনা করা হয়। যেহেতু রাতে চাঁদ দেখা যায়, এ জন্য সূর্যাস্তের পর থেকে পরদিন সূর্যাস্ত পর্যন্ত- একদিন ধরা হয়।[1]

ইসলামী রাষ্ট্রের সূচনা 

মদীনায় আসার পর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মসজিদে নববী নির্মাণ, মুহাজিরদের আবাসন ব্যবস্থা ও অন্যান্য সাংসারিক ও পারিবারিক কাজ শেষ করে দেশের শান্তি রক্ষার প্রতি মনোযোগ দেন, যা ছিল ইসলামী রাষ্ট্রের সূচনা স্বরূপ। তিনি দেখেন যে, মদীনা এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় প্রধানত বিভিন্ন ধর্মের তিন শ্রেণীর লোক বাস করে, যথা- মুসলমান ইয়াহুদী এবং পৌত্তলিক। এদের কারো সাথে কারোর আদর্শের মিল ছিলনা, তার উপর ছিল দলগত হিংসা-বিদ্বেষ। পরিস্থিতি ও পরিবেশ অনুধাবন করে নবী করীম (স.)-এরূপ চিন্তা করেন যে, ধর্মমত যার যা-ই থাকুক না কেন, তিন সাম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতি ও ঐক্য না থাকলে মদীনার কল্যাণ নেই। প্রত্যেক দেশের বৃহত্তর স্বার্থ ও মঙ্গল নির্ভর করে তার অধিবাসীদের সংহতির উপর। যে দেশে বিভিন্ন ধর্মের লোক বাস করে, সে দেশে পরমত সহিষ্ণুতার প্রয়োজন অধিক।

“নিজে বাঁচ এবং অপরকেও বাঁচতে দাও” এটাই হলো নাগরিক জীবনের মূলনীতি। মক্কায় অবস্থানকালে তিনি কুরায়েশদের কাছে এ মৌলিক অধিকারটুকু চেয়েছিলেন, কিন্তু পাননি। তাই মদীনায় এসে তিনি এর প্রয়োজনীয়তা বিশেষভাবে অনুভব করেন। পৌত্তলিক ও ইয়াহুদীদের সাথে বন্ধুভাবে বসবাস করার জন্য তিনি ইচ্ছা পোষণ করেন। সেমতে তিনি সকল সম্প্রদায়ের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের ডেকে একটি বৈঠক করেন এবং আন্তঃসাম্প্রদায়িক ঐক্য ও সম্প্রীতির আবশ্যকতা বুঝিয়ে দেন। শুধু তাই নয়, একটি সনদ বা আন্তর্জাতিক সন্ধিপত্র (International Magna Charta)ও তৈরী করেন, যাতে পরস্পরের দায়িত্ব ও কর্তব্য লিপিবদ্ধ করা হয়। যাতে সকলে সই করেন। নিম্নে এর প্রধান প্রধান শর্তগুলো উল্লেখ করা হলো :

সনদ 

বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহিম- রাসূল মুহাম্মদ বিশ্ববাসীদের এবং যারাই তাদের সাথে যোগ দেবে, সকলকে এ সনদ দিতেছেন :

১. মদীনার ইয়াহুদী, নাসারা, পৌত্তলিক সকলেই এক দেশবাসী।
২. সকলেরই নাগরিক অধিকার সমান।
৩. ইয়াহুদী, নাসারা, পৌত্তলিক এবং মুসলমান সকলেই নিজ নিজ ধর্ম পালন করবে। কেউ কারো ধর্মে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।
৪. এই চুক্তির অন্তর্ভুক্ত কোন সম্প্রদায় শত্রু কর্তৃক আক্রান্ত হলে সকলে সম্মিলিতভাবে তা প্রতিহত করবে।
৫. কেউ-ই হযরত মুহাম্মদ (স.)-এর বিনা অনুমতিতে কারো সাথে যুদ্ধ করবে না।
৬. নিজেদের মধ্যে কোন বিরোধ উপস্থিত হলে, আল্লাহ্ ও তাঁর রাসূলের মীমাংসার উপর সকলকে নির্ভর করতে হবে।
৭. বাইরের কোন শত্রুর সাথে কোন সম্প্রদায় গোপন কোন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হবে না।
৮. মদীনা নগরীকে পবিত্র মনে করতে হবে এবং যাতে তা বাইরের কোনশত্রু দ্বারা আক্রান্ত না হয়, সেদিকে সকলে লক্ষ্য রাখবে।
৯. যদি কোন শত্রু কোন সময় মদীনা আক্রমণ করে, তাহলে সকলে মিলে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে।
১০. যুদ্ধকালে প্রত্যেক সম্প্রদায় নিজেদের ব্যয়ভার নিজেরা বহন করবে।
১১. উৎপীড়িত বা মজলুমকে রক্ষা করতে হবে।
১২. মদীনায় রক্তপাত আজ থেকে হারাম বলে গণ্য হবে।
১৩. দিয়ত বা খুনের বিনিময় পূর্ববৎ বহাল থাকবে।
১৪. নিজেদের মধ্যে কেউ বিদ্রোহী হলে, অথবা শত্রুর সাথে কোন প্রকার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে, তার সমুচীত শাস্তির বিধান করা হবে; যদি সে আপন পুত্রও হয়, তবু তাকে ক্ষমা করা যাবে না।
১৫. অমুসলিমদের মধ্যে কেউ কোন অপরাধ করলে, তা তার ব্যক্তিগত অন্যায় বলে বিবেচিত হবে।
১৬. কোন সম্প্রদায় মক্কার কুরায়শদের সাথে কোন প্রকার গোপন চুক্তি করতে পারবে না এবং কেউই তাদের কোন লোককে মদীনায় আশ্রয় দেবে না।
১৭. মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই সাধারণ তন্দ্রের প্রধান নির্বাহী নির্বাচিত হলেন। যে সকল বিষয়ের মীমাংসা সাধারণভাবে না হয়, সেগুলোর মীমাংসার দায়িত্ব তাঁর উপর ন্যস্ত থাকবে। তিনি আল্লাহর বিধান অনুযায়ী তা মীমাংসা করে দেবেন।
১৮. যারা এ চুক্তি অঙ্গ করবে, তাদের উপর আল্লাহর লা‘নৎ বা অভিসম্পাত।[2]

এই চুক্তিপত্রে সকল সম্প্রদায়ের লোকেরা সই করে। কিন্তু ইয়াহুদী, নাসারা, মুনাফিক ও পৌত্তলিকরা এই চুক্তি ভঙ্গ করে আল্লাহর লানৎপ্রাপ্ত হয়েছিল।

নবূওতের পঞ্চদশ বছর - ৬২৫ খৃষ্টাব্দ, ২য় হিজরী - বয়স ৫৫ বছর।
কিবলা পরিবর্তন 

দ্বিতীয় হিজরী সনে ইসলামের অতি গুরুত্বপূর্ণ দু’টি বিষয়ের উদ্ভব হয়। একটি হলো- কিবলা পরিবর্তন; আর অপরটি হলো জিহাদের অনুমতি। উল্লেখ্য যে, যেদিকে মুখ করে নামায পড়া হয়, তাকে কিবলা বলে। পৌত্তলিকদের কিবলা ছিল কা‘বা শরীফ। আর য়াহুদীদের কিবলা হলো বায়তুল মুকাদ্দাস। হিজরতের পূর্বে এবং পরেও ১৬ মাস যাবত মুসলমানদের কিবলা ছিল বায়তুল মুকাদ্দাস। এরপর বায়তুল মুকাদ্দাসের পরিবর্তে কা’বা শরীফকে কিব্লা নির্ধারণ করার জন্য আল্লাহ্ তা‘য়ালার নির্দেশ আসে


قَدْ نَرَىٰ تَقَلُّبَ وَجْهِكَ فِي السَّمَاءِ ۖ فَلَنُوَلِّيَنَّكَ قِبْلَةً تَرْضَاهَا ۚ فَوَلِّ وَجْهَكَ شَطْرَ الْمَسْجِدِ الْحَرَامِ ۚ وَحَيْثُ مَا كُنتُمْ فَوَلُّوا وُجُوهَكُمْ شَطْرَهُ

অর্থ : “আর এখন আপনি মসজিদুল হারামের দিকে মুখ ফিরান। আর তোমরা যেখানেই থাক না কেন, তার দিকেই মুখ ফিরাও।”

— আল্-কুরআন, সূরা বাকারা, আয়াত : ১৪৪

এ নির্দেশ নাযিল হওয়ার পর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কা’বার দিকে মুখ ফিরিয়ে নামায পড়া শুরু করেন। এতে য়াহুদীরা মুসলমানদের প্রতি অসন্তুষ্ট হয়।

জিহাদের অনুমতি 

ইসলামের বিধান অনুযায়ী আল্লাহ্র যমীনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদ করা ফরয। শত্রু কর্তৃক দারুল ইসলাম বা মুসলমানরা আক্রান্ত হলে এবং সকলের যোগদান ব্যতীত সে আক্রমণ প্রতিরোধ করা সম্ভব না হলে, জিহাদে যোগদান করা ফরযে আইন, অন্যথায় ফরযে কিফায়া। রাসূলূল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হিজরত করে মদীনায় যাওয়ার পর, মদীনা দারুল ইসলামে পরিণত হয়। কিন্তু শত্রুরা তাদের আক্রমণ ও ধ্বংস করার জন্য নানা প্রকার ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত শুরু করলে তখন আত্মরক্ষামূলক যুদ্ধের নির্দেশ আল্লাহ্র তরফ থেকে আসে। যেমন আল্লাহর বাণী :

وَقَاتِلُوا فِي سَبِيلِ اللَّهِ الَّذِينَ يُقَاتِلُونَكُمْ

অর্থ : “আর তোমরা জিহাদ কর আল্লাহর পথে তাদের বিরুদ্ধে, যারা তোমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।”

— আল্-কুরআন, সূরা বাকারা, আয়াত : ১৯০

এরপর সারা পৃথিবীতে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠা করে অত্যাচার, অবিচার জুলুম, দুর্নীতির মূলোৎপাটন করে সারা বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদের ব্যাপক নির্দেশ সম্বলিত আয়াত নাযিল হয়। যেমন আল্লাহর বাণী :

وَقَاتِلُوهُمْ حَتَّىٰ لَا تَكُونَ فِتْنَةٌ وَيَكُونَ الدِّينُ كُلُّهُ لِلَّهِ

অর্থ : “আর তোমরা তাদের বিরুদ্ধে ততক্ষণ যুদ্ধ করতে থাক, যতক্ষণ না ফিতনা শেষ হয়ে যায় এবং দ্বীন সামগ্রিকভাবে আল্লাহর জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়।

— আল্-কুরআন, সূরা আনফাল, আয়াত : ৩৯

উল্লেখ্য যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আমলে যত জিহাদ অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তার অধিকাংশই ছিল আত্মরক্ষামূলক কিন্তু ইসলামের বিধানে যে শুধু আত্মরক্ষামূলক জিহাদ-ই আছে, আল্লাহর যমীনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদের কোন বিধান নেই, একথা সঠিক নয়; বরং তা সম্পূর্ণ ভুল।

মদীনা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে শত্রুতা এবং জিহাদের সূচনা 

হিজরতের পূর্ণ এক বছর পর সফর মাসে জিহাদের সূচনা হয়। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সা’দ ইবন উবাদা আনসারী (রা.)-কে মদীনায় তাঁর স্থলাভিষিক্ত নিযুক্ত করেন। তারপর তিনি একদল সাহাবী নিয়ে ‘আবওয়া’ অভিযানে বের হন। এখানে কুরায়েশদের একটি গোত্র বসবাস করতো। এটা ছিল ইসলামের ও মুসলমানদের প্রথম যুদ্ধ। এ যুদ্ধে হযরত হামযা (রা.) যুদ্ধের পতাকা বহন করেছিলেন। যে যুদ্ধে স্বয়ংরাসূলুল্লাহ (স.) শরীক থাকতেন এবং প্রধান সেনাপতির দায়িত্ব পালন করতেন, তাকে ‘গায্ওয়াহ’ বলা হতো। প্রিয় নবী (স.) ২৭টি যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। আর যে সব যুদ্ধ বা অভিযানে তিনি শরীক থাকতেন না, অন্য কাউকে তা পরিচালনার দায়িত্ব দিতেন, সেগুলোকে ‘সারীয়াহ’ বলা হয়।

উল্লেখ্য যে, মদীনা ইসলামী রাষ্ট্র হিসাবে ঘোষিত হওয়ার পর অপ্রতিরোধ্য মুসলিম শক্তিকে নির্মূলের সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত থাকে এবং মহানবী (স.) আল্লাহ্র নির্দেশে তা প্রতিহত করার চেষ্টা করেন এবং কামিয়াব হন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সৈন্যবাহিনী নিয়ে যখন ‘সাফারা’ নামক স্থানে পৌঁছান, তখন ‘আবওয়ার’ অধিপতি ঘাবড়ে যায় এবং যুদ্ধ ছাড়াই সন্ধির জন্য প্রস্তাব দেয়। রাসূলূল্লাহ (সা.) তার প্রস্তাব গ্রহণ করেন এবং তার সাথে সন্ধিচুক্তি স্বাক্ষর করে মদীনায় ফিরে যান।

গায্ওয়ায়ে বুয়াত 

২য় হিজরীর, রবিউল আওয়াল মাসে হযরত সা’দ ইবনে মাআযকে মদীনার প্রতিনিধিরূপে রেখে রাসূলুল্লাহ (স.) ২০০ শত সাহাবী নিয়ে একদল কুরায়শকে বাধা দেয়ার জন্য বের হন। তিনি (স.) বুয়াত পর্যন্ত যান, কিন্তু শত্রুদের কোন সন্ধান না পেয়ে ফিরে আসেন।

গায্ওয়ায়ে যুল-উশায়রা 

২য় হিজরীর জুমাদাল আখিরাহ মাসে হযরত আবু সালিম (রা.)-কে মদীনার প্রতিনিধি নিযুক্ত করে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রায় ২০০ শত সাহাবীকে সাথে নিয়ে কুরায়শদের একটি দলকে বাধা দেয়ার জন্য বের হন, যারা মক্কা হতে মদীনার দিকে পণ্য-দ্রব্য নিয়ে আসছিল। নবী (স.) যুল্-উশায়রা নামক স্থানে পৌঁছে জানতে পারেন যে, সে কাফেলা কয়েকদিন আগে চলে গেছে। কাজেই যুদ্ধ হয়নি।

প্রথম গায্ওয়ায়ে বদর 

উশায়রা যুদ্ধের ১০ দিন পর এ অভিযান পরিচালিত হয়। রাসূলূল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যায়দ বিন হারিসা (রা.)-কে মদীনার অস্থায়ী গভর্নর নিয়োগ করেন। এ যুদ্ধে নবী করীম (স.) কমান্ডার ইন চীফ ছিলেন এবং পতাকাবাহী ছিলেন হযরত আলী (রা.)।


তথ্যসূত্র

  1. যুরকানী, শরহে মাত্তাহেবে লাদুন্নিয়া
  2. ইবনে ইসহাক ও ইবনে হিশাম।
  • বিশ্বনবীঃ সন-ভিত্তিক জীবন তথ্য! (লেখকঃ ডক্টর আ.ফ.ম. আবু বকর সিদ্দীক)