ফাতরাত বা ওহী বিরতি

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
মুহাম্মাদ (সঃ) এর বিস্তারিত জীবনী




























  • ফাতরাত বা ওহী বিরতি

জিব্রাঈল (আঃ)-এর বিদায় গ্রহণের পর তিন বছর পর্যন্ত কোরআন নাযিল বন্ধ ছিল। বিষয়টি ছিল খুবই অসহনীয়। ইমাম বায়হাকী ইমাম শাবী (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেছেন' এই তিন বছর সময়ে হযরত ইস্রাফিল (আঃ) নবীজীর খেদমতে বিভিন্ন দোয়া ও বিষয় নিয়ে নাযিল হতেন। তিন বছর পর পুনঃ কোরআন নাযিল শুরু হয় এবং পরবর্তী বিশ বছরে তা সম্পন্ন হয়। এই মধ্যবর্তী তিন বছর সময়কে ফাতরাতুল ওহী বা ওহী বিরতি সময় বলা হয়। এই সময়ে কোরাইশদের পক্ষ থেকে কোনো বাধা আসেনি। তিন বছর পর যখন জিব্রাঈল (আঃ) নিম্নোক্ত আয়াত নিয়ে পুনঃ আগমন করেন'

হে প্রিয় কম্বলধারী নবী! প্রস্তুত হোন এবং লোকদেরকে সতর্ক করুন

তখন থেকেই নবী করিম (দঃ) দাওয়াতী কাজ শুরু করেন এবং প্রথমে নিজ পরিবার পরিজন ও আত্মীয় স্বজনদের নিকট ইসলামের বাণী পৌঁছাতে থাকেন। প্রিয় নবীর (দঃ) চাচা আবু লাহাব ইসলাম গ্রহণের পরিবর্তে প্রকাশ্যে শত্রুতা করতে আরম্ভ করে। তাঁর স্ত্রী উম্মে জামিল নবীজীর যাতায়াতের পথে কাটা বিছিয়ে রাখতো। আপন ঘরেই প্রথম শত্রু পয়দা হলো।

তথসূত্র

  • নূরনবী (লেখকঃ অধ্যক্ষ মাওলানা এম এ জলিল (রহঃ), এম এম, প্রাক্তন ডাইরেক্তর, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ)